ওপার বাংলা
‘রাজ্যে রাজ্যে গিয়ে দল ভাঙার খেলা খেলছে বিজেপি’
কাগজ ডেস্ক :
Published : Thursday, 9 November, 2017 at 7:59 PM
‘রাজ্যে রাজ্যে গিয়ে দল ভাঙার খেলা খেলছে বিজেপি’ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মোদির দল বিজেপির বিরুদ্ধে দল ভাঙানোর অভিযোগ এনেছেন। সম্প্রতি তাঁর দলের এক শীর্ষ স্থানীয় মুকুল রায় বিজেপিতে যোগ দেয়ার পর এই ক্ষোভ ঝাড়লেন মুখ্যমন্ত্রী।
বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে মমতা বলেন, সরকার চালানোর কাজ ছেড়ে শুধু রাজনীতি করার দিকেই মন দিয়েছে কেন্দ্রের শাসক দল। সরকারি ক্ষমতার অপব্যবহার করে রাজ্যে রাজ্যে গিয়ে দল ভাঙার খেলা খেলছে তারা।
ক্ষমতাসীন দলকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ওরা (বিজেপি) এখন ভাষণ বেশি দিচ্ছে। কেন্দ্রের সব মন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের কাজ ছেড়ে রাজ্যে রাজ্যে দলকে বাড়িয়ে তোলার ব্যাপারে বেশি মনোযোগী। মমতার আরও অভিযোগ, ‘এজেন্সিকে ব্যবহার করে বিজেপি দল বাড়ানোর কাজ করছে। সরকারের কাজ না করে কীভাবে দলটাকে মজবুত করা যায়, যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোকে ধ্বংস করা যায়, আর দাঙ্গা বাধানো যায়, এই কাজটাই ওরা  করছে।’
তবে মুখ্যমন্ত্রীর এই অভিযোগ নাকচ করে ওই অনুষ্ঠানে অংশ নেয়া দিল্লির বিমান প্রতিমন্ত্রী জয়ন্ত সিনহা বলেন, ‘দল হিসাবে আমরা সুশাসন ও জাতীয় স্বার্থকেই অগ্রাধিকার দিই। সে জন্যই বিভিন্ন রাজ্য থেকে মানুষ আমাদের দলে যোগ দিচ্ছেন।’
মমতার এই বক্তব্যের নেপথ্যে কারণও হচ্ছে তাঁর দলের ভাঙ্গন।  গত এক বছরে ত্রিপুরায় পুরো তৃণমূল দলটাই বিজেপিতে চলে গিয়েছে। বিধায়কদের সকলেই এখন বিজেপির হয়ে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে লড়বেন। মণিপুরেও তৃণমূলের এক বিধায়ক বিজেপিকে সরকার গড়তে সমর্থন দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি ও উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তৃণমূলের সাংসদ-বিধায়কদের একাংশ বিজেপি প্রার্থীদের ভোট দিয়েছিলেন বলেও মুখ্যমন্ত্রী রিপোর্ট পেয়েছেন। সর্বশেষ ঘটনা হল, মুকুল রায়ের দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া।
এ কারণে তৃণমূলের অনেকে মনে করছেন, বিভিন্ন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার চাপে পড়েই দলীয় নেতারা তৃণমূল ছাড়ছেন বা বসে যাচ্ছেন। এ জন্য সর্বাগ্রে এসেছে সিবিআই-ইডি’র মতো সংস্থার নাম। এই দুই সংস্থা নারদ, সারদা কেলেঙ্কারির তদন্তে নেমে একের পর এক নেতা, সাংসদ ও মন্ত্রীকে তলব করছেন। এই তদন্ত থেকে বাঁচতে গোপনে বিজেপিমুখো হচ্ছেন তৃণমূলের অনেক নেতা।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft