শিক্ষা বার্তা
মাদারীপুরে এসএসসি পরিক্ষার ফরম পূরণে বাড়তি টাকা নেয়ার অভিযোগ
মাদারীপুর প্রতিনিধি :
Published : Monday, 13 November, 2017 at 3:12 PM
মাদারীপুরে এসএসসি পরিক্ষার ফরম পূরণে বাড়তি টাকা নেয়ার অভিযোগ মাদারীপুরের চারটি উপজেলার প্রায় সবগুলো বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফরম পূরণের নামে বাড়তি টাকা নেয়ার হচ্ছে। বিদ্যালয়গুলো বিভিন্ন নামে-বেনামে, খাত দেখিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে নিচ্ছে বলে একাধিকভাবে অভিযোগ পাওয়া গেছে।   
বিভিন্ন বিদ্যালয় ঘুওে এবং অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবছরের মত এবারও টেস্ট পরীক্ষা শেষে  ফলাফল প্রকাশের পরপরই শুরু হয়েছে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ। ফরম পূরণের ফি বোর্ড নির্ধারণ করে দিলেও স্কুলগুলো তার তোয়াক্কা না করে অবৈধভাবে নামে-বেনামে বাড়তি টাকা আদায় করেছে। স্কুলগুলোতে বাধ্যতামূলক কোচিং এর নামে টাকা আদায় করা হয়। কিছু স্কুলে টেস্ট পেপারস্ স্কুল থেকেই কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে।
তাছাড়া ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে কম্পিউটার বিল, ইন্টারনেট বিল, ঢাকা যাওয়া আসার ভাড়া, ঝাড়–দারের জন্য বেতন বাবদ, মিলাদসহ নানা হিসেবে দেখিয়ে বাড়তি টাকা নেয়া হচ্ছে। এমনকি স্কুলে নোটিশ টানিয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে বিদ্যালয়গুলো।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর ২০১৮ খ্রিস্টাব্দের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ফরম পূরণের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীপ্রতি সর্বোচ্চ ফি নির্ধারণ করা হয়েছে বিজ্ঞান বিভাগের জন্য এক হাজার ৫৫০ টাকা। মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের  ফি সর্বোচ্চ এক হাজার ৩৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সব বিভাগের জন্যই বিলম্ব ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ১০০ টাকা। এরপরও মাদারীপুরের বেশীর ভাগ বিদ্যালয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে। পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে কমপক্ষে ২ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত।
আবার কোন কোন বিদ্যালয়ের টেস্ট পরীক্ষায় এক বা একাধিক বিষয়ে ফেল করলে তাদের কাছে ৫ হাজার থেকে ৮ হাজার টাকাও নেয়া হচ্ছে।
এমন অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে তাতী বাড়ী ইসলামীয়া উচ্চ বিদ্যালয়, মাদ্রা উচ্চ বিদ্যালয়, চরমুগরীয়া মার্চেন্ট উচ্চ বিদ্যালয়, মস্তফাপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারী ইউনাইটেড ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, ডনোভান সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়সহ জেলার প্রায় সবগুলো বিদ্যালয়ের ব্যাপারেই অভিযোগ রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক এসএসসি পরিক্ষার্থীরা জানান, স্কুলে টাকা নেয়ার রশিদ না দিয়েই বাড়তি টাকা আদায় করেছে। আবার অনেক স্কুলে নানা খাত দেখিয়ে রশিদে টাকার অংক লিখে দিচ্ছে। আমরা ৪ হাজার টাকা দিয়ে ফরম পূরণ করতে পেরেছি। যাদের এতো টাকা নেই তারা কিভাবে পরিক্ষা দিবে। সরকারের এদিকে কঠোর নজর দেয়া উচিত।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক জানান, শিক্ষা বোর্ডগুলো এসএসসির ফরম পূরণের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীপ্রতি ন্যূনতম ফি নির্ধারণ করলেও স্কুলগুলো তিন থেকে সাত গুণ পর্যন্ত টাকা আদায় করে থাকে। এ বিষয়ে সরকারের যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া উচিত।
তাতীবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জিয়াউর রহমান সুমন বলেন, সরকারের নির্ধারিত ফি খুবই কম। এ ফি পরিবর্তন করে আরো বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। ম্যানেজিং কমিটির নির্ধারিত ফি আদায় করা হচ্ছে। আমরা অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছি না।
ভারপ্রাপ্ত জেলা শিক্ষা অফিসার মো. নুরুল ইসলাম জানান, এসএসসির ফরম পূরণে মাদারীপুরে তেমন কেউ বেশী টাকা নিচ্ছে না। আর বোর্ডের নির্ধারিত ফি নেয়া হচ্ছে। তবে যদি বেশী টাকা নেয়া সেই স্কুলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, সরকারি নির্ধারিত করা টাকা ছাড়া বিভিন্ন খাত দেখিয়ে যারা অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যাদের কাছ থেকে সরকারী ফি ব্যতিত অতিরিক্ত টাকা আদায় করেছে, যদি প্রমাণ মেলে তাহলে তাদের টাকা ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft