মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
ইলিশির নামে বিষ বিক্কির দেকপে কিডা ?
Published : Wednesday, 3 January, 2018 at 8:10 PM, Update: 03.01.2018 8:14:45 PM
ইলিশির নামে বিষ বিক্কির  দেকপে কিডা ?দেকতি হুবহু ইলিশ মাচের মতো। হাটে বাজারে,বাজারের বাইরি, পতেঘাটে, তেমাতায়, হাটখুলায় ফেরিআলার কাচে বিক্কির হচ্চে। বেচার সুমায় ক্যাকায় কচ্চে পদ্মার ইলিশ, বরিশালের ইলিশ---। দেকতি বড়সড়ো আর চকচকে রুপোর মতো আইসটে দেকে খদ্দেররা আল্লাদে আটখান হইয়ে কিনে নিয়ে বাড়ি যাচ্চে। তবে রান্দার পরে বুজা যায় আসল মাজেজা। আর হোটেলে খাতি বইসে ইলিশ মাচ অডার দিলি সর্ষে দিয়ে রান্দা মাচের টুকরো বাটিতি ঝোলে বুড়োয় আইনে দেবে দেকলি বুজার জো নেই ইডা ইলিশ না অন্য কিছু। কিন্তুক যারা ভোজন রসিক তারা মুকি দিলি জিবেয় কইয়ে দেবে মালে ভেজাল আচে। স্বাদ গন্দতো নেইই। উল্টো গাছিক খানিক কাটাকুটির বিস্বাদ। কেউ কয় সাডিন কেউ কয় চান্দিনা। এতো দিন অনেকে টুকটাক কিরাম কিরাম মনে হলিও জানেরে বুজ দিত ইলিশ না হোক সমুদ্রির মাচতো খাচ্চি। কাল পিপারে যা পড়লাম তাতে জান টকশাই গ্যালো। বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কত্তিরপক্কের কম্মকত্তা মাহবুব কবীর চাচা কইয়েচেন, হু হু ইলিশ মাচের মতো দেকতি যা বাজারেত্তে কিনে মানুস খাচ্চে তার নাম নাই কলম্বো সাদ বা গিজারড সাদ নামে আমদানি করা হচ্চে। মিয়ানমার, ফিলিপাইন ও ওমানতে আমদানি করা ইলিশ মাচের নামে এই মাচ আসতেচে। মিয়ানমারতে নিয়ে আসা মাচ টেকনাপে ভ্যাট কাষ্টম অপিস, অন্যান্য দেশ থাইকে আসা মাচ চট্টগিরাম আর ঢাকা আন্তরজাতিক বিমানবন্দর দিয়ে আসতেচে।  ইলিশের দরে বিক্কির হওয়ায় বেশি মুনাফার লোবে এ মাচ দেদারসে আমদানি হচ্চে। শুধু হজরত শাহজালাল বিমানবন্দর দিয়ে শুনা যাচ্চে পতি মাসে ১ টন মাচ আমদানি হচ্চে। চাচার ভাইস্য মতে,দেশের বাজারে চান্দিনা বা চাদিনা নামে বিক্কির হওয়া মাচ দুডোতে স্বাস্ত্যের জন্যি ক্ষেতিকর হেবি মিটাল উপাদান পাওয়া গেচে। বাজারেত্তে টাকা দিয়ে মাচের নামে মানুস আসলে বিষ খাচ্চে। স্বাবাবিক মাত্রায় মাচে লেড এর পরিমাণ শূন্য দশমিক ৩ ভাগ হলিও ল্যাবরোটরিতি টেস কইরে ৫ গুণ বেশি সীসে পাওয়া গেছে। এছাড়া দ্বিগুণির বেশি ক্যাডমিয়াম পাওয়া গেচে। মাচের নামে বিষ আমদানি বন্দ কত্তি আমদানি করা এ সব মাচ ল্যাবে টেস না কইরে খালাস কত্তি বারন কইরে চিটি দেচে। গাটির টাকা খরচ কইরে চড়া দামে পাল্লাপাল্লি কইরে মাল জিনিস কিনেও যদি শুনতি হয় খাদ্যের নামে বিষ খাচ্চি তালি যাবোডা কনে! ভেজালেই সব খ্যায় হইয়ে গ্যালো। মানুস যাবে কনে ! খাবে ডা কি ? এই খবর শুইনে গিরামের এক মুরুব্বী কলে আগে মানুস গুলায় ধান চাইল স্টোক কইত্তো আর একন এই সব ছাই পাশ খাইয়ে মানুসই স্টোক কত্তেছে। দুক্কির কতা কবো কারে  শোনবে কিডা ?

শব্দার্থ : দেকতি=দেখতে, কেকায়=চিৎকার করে, কচ্চে=বলছে, আইসটে=আঁশ, দেকে=দেখে, বুড়োয়, ডুবিয়ে, আইনে=এনে, বিক্কির=বিক্রি, লোবে=লোভে, টেস= টেস্ট, মাল জিনুস= মালপত্র

অভাগা আক্কেল চাচা, মোবাইল নং-০১৭২৮-৮৭১০০৩
ই-মেইল : cacaakkel@gmail.com






সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft