শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
ইরাম কইরে কি লাব হলো ?
Published : Friday, 2 February, 2018 at 1:20 AM
ইরাম কইরে কি লাব হলো ?এক লোকের মাইয়ে টাউনি থাকে। গিরামের এক ভাইপো টাউনি কি এট্টা কাজে যাবে সেই লোক যাইয়ে ভাইপোরে কচ্চে, তুমিতো টাউনি যাচ্চো মাইয়েডার জন্যি কয়ডা দেশী কুকড়ো পাটাতি চাইলাম এট্টু নিয়ে যাবা? দরকার হয় তুমার পতের ভাড়াভুতো দিয়ে দিবানে। ভাইপো কলে কি কচ্চাও চাচা আমিতো এম্মিই টাউনি যাতাম। ভাড়াভুতো লাগবে না তুমি কুকড়ো বাইন্দে রাইকেনে আমি নিয়ে বুনির বাড়ী দিয়ে আসপানে। সাত সকালে চাচা খ্যাচার মদ্দি গাছিক খানিক কুকড়ো ভাইপোর সাইকেলের ক্যারিয়ালে বাইন্দে দেচে। ভাইপো মনের সুকি সাইকেল চালায় যাচ্চে। রাস্তাঘাটের যে দশা,ভাইপোর জীবন শেষ হওয়ার জুগাড়। গত্তগাড়ায় মনে হচ্চে কাইতেন ঢ্যালার মদ্দি দিয়ে সাইকেল যাচ্চে। এক জাগায় আইসে সাইকেল নিয়ে ভাইপো গ্যালো হুবড়ি খাইয়ে পড়ে। ধড়মড় কইরে ঠেইলে উটে এদিক ওদিক তাগাচ্চে কেউ দেইকলো কিনা। হটাস চোক পইড়েছে কুকড়োর খ্যাচা কাত হয়ে পইড়ে আচে। কুকড়ো এর মদ্দিতে বারোয়ো যে যার মতো দৌড়। ভাইপোর চোক কপালে আলাম কনে! মলাম যে ! এক সাজ খাওয়ার লোব কত্তি যাইয়ে কোন খাইন বাইদলো। গত্তত্তে সাইকেল তুইলে ভাইপো শুরু কইল্লো দাবড়া দাবড়ি। বহুত কষ্টে দাবড়ায়ে নয়ডা কুকড়ো ধত্তি পাইল্লো। তাই খ্যাচায় ভইরে নিয়ে বুনির বাড়ি  দেলে। চলে আসার সুমায় মনে হচ্চে বুন যদি চাচারে কয় মাত্তর নয়ডা কুকড়ো দিয়ে গেচে রাস্তার দূরঘটনাতো সে জানেনা,চাচারে কইয়ে দিলি কি মনে করবেনে! যদি ভাবে ভাইপো কি দিতি যাইয়ে দুই এট্টা ঝাইড়ে দেলে কিনা। তার চাইতি আগেই মুবাল কইরে চাচারে জানায় দিয়া ভালো। ভাইপো চাচারে মুবাল কইরে কচ্চে, চাচা কিচু মনে কইরে না, রাস্তায় যাইয়ে পইড়ে গিলাম। কুকড়ো বারোয় গিলো, কোনমতে দাবড়ায়ে নয়ডা ধরিচি তুমি কিচু মনে কইরেনা। সবশুইনে চাচা কচ্চে আমি কিচু মনে করিনি ভাইপো বরং তুমার কাজে খুশী হইচি। ভাইপো কচ্চে ক্যান চাচা? চাচা কলে তুমি দাবড়ায়ে নয়ডা ধরিচাও আমিতো পাটাইলাম ছয়ডা। শুইনে ভাইপো আকাটা মাইরে গেচে। গিরামের কাগজে পড়লাম গ্যালো মঙ্গলবার এতিমির টাকা হজমি কেসে হাজতে দিতি যাচ্চিল বিএমপির চিয়ারপারসোন। ঢাকার হাইকোট মাজার গেটের সুমকি জটলা কত্তি আসা নিতা কর্মীগের মদ্দিতে পুলিশ বিএমপির তিন নিতারে আটক কইরে পুলিশের গাড়ির খ্যাচায় ভরিল। আরো কয়ডা ধরার চিস্টা দিয়া সুমায় গন্ডগোল বাদে। এ সুমায় মারমুকি হইয়ে গাড়ির খ্যাচা ভাইঙ্গে তিন নিতারে ছাড়ায় নিয়ে গেচে বিএমপির করমীরা। পুলিশ ঠেকাতি যাইয়ে মারগুতোনের সাতে বন্দুকির বাটও হারায়েচে। খ্যাচাত্তে বারোয় গেচে তিন বিএমপি নিতা। সে ঘটনায় গিরামের ভাইপোর মতো পুলিশ দাবড়ায়ে তিনডের বদলী তিন তিরিশ নব্বইডারে ধইরে দেচে। বুইজে উটতি পাল্লাম না যকন দাগে পা দিলি পচা, স্যানে যাইচে তিনজন ছাড়াতি যাওয়ার খী দরকারডা ছিল বাপু? এখন যে নব্বইজন ঘের খালে আর কতজন যে মামলা খালে তাতে কি লাব হলো ?

শব্দার্থ: টাউনি=শহরে,কুকড়ো=মুরগী,পতের=পথের,খ্যাচার=খাঁচার,কাইতেন ঢ্যালা=কার্ত্তিক মাসে জমিতে চাষ দেবার পর বড় মাটির চাক,হুবড়ি=হুমড়ি,হটাস=হঠাৎ,হাজরে=হাজিরা,



 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft