মঙ্গলবার, ২৬ মে, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরে টিসিবি’র পণ্য বিক্রিতে নানা অনিয়ম
ফয়সল ইসলাম :
Published : Wednesday, 1 April, 2020 at 11:59 AM
যশোরে টিসিবি’র পণ্য বিক্রিতে নানা অনিয়মকরোনা দুর্যোগেও নানা অভিযোগ ও অনিয়মের মধ্য দিয়ে যশোরে চলছে  সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্য বিক্রি। পণ্যের স্বল্পতা, ওজনে কম দেয়া, দেরি করে নির্দিষ্ট পণ্য নিয়ে আসা, জোর পূর্বক অপ্রয়োজনীয় পণ্য গচিয়ে দেয়া, এবং দীর্ঘসময় ধরে লাইনে দাঁড় করানোর পর ‘পণ্য নেই’ বলে ক্রেতাদের বিদায় করে দেয়ার প্রমাণ মিলেছে। এতে চরম ক্ষুব্ধ হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। অভিযোগ রয়েছে, টিসিবির এক শ্রেণির কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী কিছু অসৎ উদ্দেশ্যে সরকারের মহতী এ উদ্যোগ ব্যর্থ করার পাঁয়তারায় করছে।
করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সাধারণ মানুষকে ঘরবন্দি থাকতে এবং মুদি ও কাঁচা বাজার ব্যতিত সকল দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। তবে নিত্যপণ্যের বাজার স্থিতিশীল ও সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখতে সরকার টিসিবির মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যে চিনি, মসুর ডাল, সয়াবিন তেল বিক্রি করছে। প্রয়োজনের তুলনায় পণ্যের সরবরাহ কম থাকায় সাধারণ ক্রেতা লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য পাচ্ছে না। মানুষ ডালের জন্য লাইনে দাঁড়ালেও প্রায়ই পায় না, আবার পেলে তার সঙ্গে তেল নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। ‘খুচরা নাই’ এমন অজুহাতেও রাখা হচ্ছে বাড়তি মূল্য। বাড়তি মূল্য দিতে না চাইলে ক্রেতাকে লাইন থেকে বের করে দেওয়া হচ্ছে। ক্রেতা যখন খুচরা নিয়ে আসছেন, তখন আর আগের লাইনে দাঁড়ানো সুযোগ পাচ্ছেন না। দাঁড়াতে হচ্ছে নতুন লাইনে। আর নতুন লাইনে দাঁড়ালে আবার ঘণ্টা পার। আর পণ্যের ওজনে কম দেয়ার অভিযোগতো আছেই।
সরেজমিনে পহেলা এপ্রিল যশোর শহরের মণিহার সিনেমা হলের সামনে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে টিসিবি’র পণ্য যে গাড়িটির মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করা হচ্ছিল সেটি মেসার্স সিরাজুল ইসলাম নালিয়া নামে এক ডিলারের ব্যানার সাটানো। ক্রেতাদের অভিযোগ পণ্যের সরবরাহে ওজমে কম দেয়া হচ্ছে। অভিযোগকারী ক্রেতা আস্থা বেকারির মালিক এবিএম কামরুজ্জামান পলাশ জানান, তিনি দু’কেজি মসুর ডাল, দু’কেজি চিনি, দু’লিটার সয়াবিন তেল কেনেন। ডাল ও চিনি ওজনে কম আছে বলে সন্দেহ জাগে। পাশের একটি ফলের দোকানের ডিজিটাল ওজন মাপের যন্ত্রে ডাল ও চিনি মাপা হয়। এতে দু’কেজি ডালে ১শ’ ৮০ গ্রাম ও চিনিতে ১শ’ ৫০ গ্রাম কম পাওয়া যায়। এ বিষয়টি টিসিবি’র পণ্য বিক্রয়কারী আলমগীর নামে এক ব্যক্তিে জানানো হয়। প্রথমে ঘটনাটি আমলেই নেননি। এরপর আরো কয়েক ক্রেতা পণ্য মেপে ওজনে কম পাওয়ায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। ক্ষুব্ধ ক্রেতারা ঘটনাস্থলে জটলা সৃষ্টি করে। ওই মুহূর্তেই আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের টহল গাড়ি যাচ্ছিল। প্রতারণার শিকার ক্ষুব্ধ ক্রেতারা গাড়িটির গতিরোধ করে অভিযোগ জানান। ওই সময় একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কয়েকজন ক্রেতার মালামাল নিজেই পরিমাপ করে ওজনে কম পান। টিসিবি’র পণ্য বিক্রয়কারী আলমগীরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। আলমগীর ভুল স্বীকার করেন। একই সাথে ভবিষ্যতে আর ক্রেতাদের ঠকাবেন না বলে ওয়াদা করায় তাকে ক্ষমা করা হয়। 




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : gramerka@gmail.com, editor@gramerkagoj.com
Design and Developed by i2soft